Home / এক্সক্লুসিভ / যার সামনে কাঁদা যায় সেই মানুষটার সাথেই সারা জীবন কাটানো যায়: তামিমা

যার সামনে কাঁদা যায় সেই মানুষটার সাথেই সারা জীবন কাটানো যায়: তামিমা

তামিমা-নাসির ও রাকিব এই তিন জনের নাম বাংলাদেশে জানেননা এমন কেউ নেই। তবে সব বিতর্ককে উতড়ে নতুন জীবনের শুরুতেই যমুনা নিউজকে নাসির ও তামিমা বলেছেন নাসির বা তামিমা এমন মানুষ যার সামনে বসে কান্না করা যায়।

তামিমা বলেন, দেখুন একজন মানুষের সাথে হয় তো একমাস বা ২ মাস ভালো থাকা যায় কিন্তু যার সামনে কান্না করা যায় না তার সাথে আসলেও ভালো থাকা সম্ভব নয়। নাসির এমন একজন মানুষ যার সামনে কাঁদা যায়। এই বিষয়ে নাসিরেরও বক্তব্য একই।

আরও পড়ুনঃ
তামিমার সাবেক স্বামী রাকিবকে একি বললেন সিদ্দিকের সাবেক স্ত্রী ছোটপর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা সিদ্দিক। ভালোবেসে ২০১২ সালের ২৪ মে বিয়ে করেছিলেন মারিয়া মিমকে। ২০১৩ সালে জন্ম হয় এ দম্পতির প্রথম সন্তান আরশ। কিন্তু মান অ;ভিমা;নের কারণে ২০১৯ সালের অক্টোবরে সিদ্দিককে তা;লা;ক দেন মিম।

এবার নাসির-তামিমা ইস্যুতে আ;লোচি;ত রাকিবকে নিয়ে মুখ খুলেছেন মারিয়া মিম।বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) নিজের ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন তিনি।মারিয়া মিমের স্ট্যাটাসটি পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

রাকিবকে আমার বা;ট;পা;র মনে হচ্ছে। মেয়েকে দেখতে আসার নাম করে চু;রি করে নিয়ে গেছে আর এখন ব্লে;ই;ম দিচ্ছে মায়ের।সব স্বামীরাই বা;চ্চাদের ব্যবহার করে মানুষের কাছে মহান হওয়ার জন্য।সি;দ্দিকও একই কাজ করেছে। আরশকে ওর কাছে আ;ট;কে রেখে আমাকে মানুষের কাছে ছোট করা হয়েছে।

বলা হয়েছে, আমি বাচ্চার সঙ্গে কথা বলি না, বাচ্চাকে আমার কাছে নেই না।সেই বাচ্চাকে আমার কাছে নেয়ার জন্য মা;ম;লা পর্যন্ত করতে হয়েছে।এখন আরশ আমার কাছে থাকে তারপরও মানুষে খা;রা;প ম;ন্ত;ব্য শু;নতে হয়।ডি;ভোর্স; হলে মেয়েদেরকেই কথা শু;নতে হয়। আর এখানে স্বামীরা হয়ে যায় মহান।

রাকিবকে সাপোর্ট না দিয়ে ভালো করে জানা উচিত ও সত্যি নাকি মি;থ্যা বলছে।আর মি;থ্যা হলে রাকিবকে এমন শা;স্তি দেওয়া উচিত যাতে কোনো স্বামী এসব হ;য়রা;নি করার সা;হ;স না পায়।

About mk tr

Check Also

তামিমা আমার কাছে আন্তরিকভাবে ক্ষমা চেয়েছে : বললেন রাকিব

বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার নাসির হোসেন এর বিয়ে নিয়ে তুমুল তুলকালাম কান্ড চলছে সর্বত্রই বিশেষ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *